রংপুর মেট্রোপলিটন গোয়েন্দা পুলিশের সাঁড়াশি অভিযানে ৩ টন নিষিদ্ধ পলিথিন জব্দ

রংপুর প্রতিনিধি

রংপুর মহানগরীর নবাবগঞ্জ বাজারে রংপুর মেট্রোপলিটন ডিবি পুলিশ পরিবেশ দূষণকারী পলিথিন বিরোধী সাঁড়াশি অভিযান পরিচালিত হয়।গতকাল রোববার সন্ধা ধেক রাত পর্যন্ত অভিযানে ৪ ব্যক্তির মালিকানাধীন ৪ টি পলিথিনের দোকান এবং সংশ্লিষ্ঠ ৪টি গুদামে অভিযান পরিচালনা করে সর্বমোট ১৫২ বস্তা যার মোট ওজন ৩০৪০ কেজি সরকার নিষিদ্ধ পলিথিন জব্দ করা হয়। যার আনুমানিক বাজার মূল্য- প্রায় ৯,১২,০০০ (নয় লক্ষ বার হাজার) টাকা। জব্দকৃত পলিথিনের মালিক ও অপরাধের সাথে সংশ্লিষ্ট ব্যক্তিদের বিরুদ্ধে আরপিএমপি কোতয়ালী থানায় মামলা রুজু করা হয়েছে।
এক প্রেস বার্তায় পুলিশ জানায়, গোপন সংবাদের ভিত্তিতে রংপুর মেট্রোপলিটন গোযেন্দা বিভাগ (ডিবি) এর উপ-পুলিশ কমিশনার (ডিবি) কাজী মুত্তাকী ইবনু মিনান এর নির্দেশনায় সহকারী পুলিশ কমিশনার (ডিবি) জনাব মোঃ ফারুক আহমেদ এর পরিকল্পনা একদল সাদা পোশাকের পুলিশ পরিবেশ অধিদপ্তর, রংপুর এর প্রতিনিধিদের সহায়তায় নগরীর সুপার মার্কেটসংলগ্ন নবাবগঞ্জ মার্কেট এর ভিতরে এ অভিযান পরিচালনা করে। এ অভিযানে মোঃ ওবায়দুল ইসলাম (৩৫), পিতা- আলাউদ্দিন মিয়া, সাং- শালবন মিস্ত্রিপাড়া, থানা-কোতয়ালী, মহানগর, রংপুর এর চায়না লেন মেসার্স নয়ন স্টোর নামে দোকান ও ভাড়ায় চালিত গোডাউন ঘর তল্লাশী করে ৬০ (ষাট) বস্তা সরকার কর্তৃক নিষিদ্ধ ঘোষিত পলিথিন ব্যাগ উদ্ধার করা হয়। মোঃ আমান উল্ল্যাহ খান (৫৫), পিতা- মৃত আব্দুল হাই খানা, সাং- নবাবগঞ্জ বাজার (গুদরিবাজার) হীনদা গলি , থানা-কোতয়ালী, মহানগর, রংপুর এর ভাড়ায় চালিত গোডাউন ঘর তল্লাশী করে ৬০ (ষাট) বস্তা সরকার কর্তৃক নিষিদ্ধ ঘোষিত পলিথিন ব্যাগ উদ্ধার করা হয়। মোঃ ফরিদ (৩০), পিতা-অজ্ঞাত, সাং- অজ্ঞাত, থানা- অজ্ঞাত, রংপুর মহানগর, রংপুর এর ভাড়ায় চালিত গোডাউন ঘর তল্লাশী করে ২৪(চব্বিশ)টি পুরাতন প্লাষ্টিকের বস্তার ভিতরে রক্ষিত অবস্থায় সরকার কর্তৃক নিষিদ্ধ ঘোষিত পলিথিন ব্যাগ উদ্ধার করা হয়। এবং মোঃ আবু তাহের (৩৫), পিতা- মোঃ হাসান আলী পিতাঃ হাসান মুন্সী, সাং- হনুমানতলা, থানা- কোতয়ালী, রংপুর মহানগর, রংপুর এর ভাড়ায় চালিত গোডাউন ঘর তল্লাশী করে ৮(আট) টি পুরাতন প্লাষ্টিকের বস্তার ভিতরে রক্ষিত সরকার কর্তৃক নিষিদ্ধ ঘোষিত পলিথিন ব্যাগ উদ্ধার করা হয়।
পুলিশ জানায়, জব্দকৃত পলিথিনের মালিক ও অপরাধের সাথে সংশ্লিষ্ট ব্যক্তিদের বিরুদ্ধে আরপিএমপি কোতয়ালী থানায় মামলা রুজু করা হয়েছে। সবগুলো মামলাগুলো‘পরিবেশ সংরক্ষণ আইন-১৯৯৫(সংশোধনী/২০১০)’ এর ৪(ক)/(খ)’ ধারা। জব্দকৃত পলিথিনের উৎপাদন, মজুদ, পরিবহন ও বাজারজাতকরণ থেকে খুচরা বিক্রির সাথে জড়িত সকলকে বিস্তৃত ও নিবিড় তদন্তের মাধ্যমে সনাক্ত করে আইনের আওতায় আনা হবে।