মির্জাপুরে বৃষ্টিতে পানি বৃদ্ধির ফলে বংশাই-লৌহজং নদীতে তীব্র ভাঙ্গন, অর্ধশতাধিক আঞ্চলিক রাস্তার ব্যাপক ক্ষতি

বৃষ্টিতে নদীর পানি বৃদ্ধি পাওয়ায় ভাঙ্গল কবলিত বংশাই নদীর ত্রিমোহান-বাওয়ারকুমারজানি গ্রাম

মির্জাপুর (টাঙ্গাইল) প্রতিনিধি

টাঙ্গাইলের মির্জাপুরে পানি বৃদ্ধিতে বংশাই-লৌহজং নদীর দুই পাড়ে তীব্র ভাঙ্গন শুরু হয়েছে। বৃষ্টিতে অর্ধশতাধিক আঞ্চলিক ও গ্রামীণ রাস্তা ভেঙ্গে ব্যাপক ক্ষতি হওয়ায় চলাচলের অনুপযোগি হয়ে পরেছে। নদী ভাঙ্গনের ফলে হুমকির মুখে পরেছে বসত বাড়ি, শিক্ষা প্রতিষ্ঠান, হাট বাজার, রাস্তা-ঘাট, বিজ্র-কালভার্ট ও ফসলি জমি।
আজ মঙ্গলবার ফতেপুর ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান মো. আব্দুর রউফ জানান, প্রবল বৃষ্টিতে নদীতে পানি বৃদ্ধি পাওয়ায় চরম দুর্ভোগের মধ্যে পরেছেন বহু পরিবার। গত কয়েক দিন ধরে পানি বৃদ্ধির ফলে বংশাই নদীর ফতেপুর, হিলড়া আদাবাড়ি, থলপাড়া, বৈন্যাতলী, চাকলেশ^র, গোড়াইল, গাড়াইল, পুষ্টকামুরী পুর্বপাড়া, বাওয়ার কুমারজানি, ত্রিমোহন, বান্দরমারা, যুগিরকোপা, রশিদ দেওহাটাসহ বিভিন্ন এলাকায় দেখা দিয়েছে নদী ভাঙ্গন। বৃষ্টিতে গ্রামীন রাস্তাঘাট ভেঙ্গে ব্যাপক ক্ষতি হয়েছে। মাঝালিয়া এলাকার বাসিন্দা হাবিুর রহমান হাবিব জানান, লৌহজং নদীর মাঝালিয়া, গুনটিয়া, চুকুরিয়া, বরাটি, দেওহাটা, কোর্ট বহুরিয়া, বহুরিয়া, কামারপাড়া, নাগরপাড়াসহ বেশ কয়েকটি এলাকা নদী ভাঙ্গনে বহু পরিবার দিশেহারা হয়ে পরেছেন। ক্ষতিগ্রস্থ্য হচ্ছে ব্রিজ, কালভার্ট ও রাস্তা-ঘাট ফসলি জমি।
অপরদিকে অতি বৃষ্টির ফলে সড়ক ও জনপথ বিভাগের অধিনে মির্জাপুর-ওয়ার্শি-বালিয়া রাস্তা, মির্জাপুর-ভাতগ্রাম-কেদারপুর রাস্তা, গোড়াই-সখীপুর রাস্তা এবং পাকুল্যা-দেলদুয়ার রাস্তা ক্ষতিগ্রস্ত হয়ে চলাচলের অনুপযোগি হয়ে পরেছে। একই ভাবে এলজিইডির অধিনে কদিমধল্যা-ছাওয়ালী-বাসাইল রাস্তা, হিলড়া-আদাবাড়ি-ফতেপুর রাস্তা, ফতেপুর-পারদিঘিী রাস্তা, কদিমধল্যা-বরাটি রাস্তা, পাকুল্যা-লাউহাটি রাস্তা, কাটরা-উফুলকী রাস্তা, মির্জাপুর-কামারপাড়া-ভাওড়া রাস্তা, ভাবখন্ড-পাইকপাড়া রাস্তা, দেওহাড়া-ফতেপুর-আনাইতারা রাস্তা, ওয়ার্শি-নাগরপাড়া-ভাতগ্রাম রাস্তা, দেওহাটা-বহুরিয়া রাস্তা, কুরনী-ফতেপুর রাস্তা, সোহাগপাড়া-কোদারিয়া রাস্তা, হাটুভাঙ্গা-আজগানা-কুড়িপাড়া রাস্তা, বাঁশতৈল-বালিয়াজান রাস্তাসহ অর্ধশতাধিক আঞ্চলিক ও গ্রামীণ রাস্তার ব্যাপক ক্ষতি হয়েছে। এসব রাস্তা এখন চলাচলের অনুপযোগি হয়ে পরেছে বলে মহেড়া ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান মো. বাদশা মিয়া জানিয়েছেন।
এদিকে নদীতে পানির চাপ বেড়ে যাওয়ায় বংশাই নদীর থলপাড়া ব্রিজ, ত্রিমোহন বীর মুক্তিযোদ্ধা একাব্বর হোসেন ব্রিজ, কোদারিয়ার লতিফপুর ব্রিজ, লৌহজং নদীর উপর নির্মিত গুনটিয়া ব্রিজ, বরাটি এলাকায় বাবু দুঃখীরাম রাজবংশী ব্রিজ, পুষ্টকামুরী ব্রিজ, পাহাড়পুর ব্রিজ, বীর মুক্তিযোদ্ধা নুরুল ইসলাম নুরু ব্রিজ এবং ওয়ার্শি ব্রিজ হুমকির মুখে বলে অভিযোগ পাওয়া গেছে।
এ ব্যাপারে মির্জাপুর উপজেলা স্থানীয় সরকার প্রকৌশল অধিদপ্তরের (এলজিইডি) প্রকৌশলী মোহাম্মদ আরিফুর রহমান বলেন, বৃষ্টিতে ক্ষতিগ্রস্থ্য, আঞ্চলিক ও গ্রামীন রাস্তা ও ব্রিজের ক্ষতি হচ্ছে। এলাকা পরিদর্শন করে ক্ষতিগ্রস্ত রাস্তা ও বিজ্রের প্রকল্প তৈরী করা হচ্ছে। প্রয়োজনীয় বরাদ্ধ চেয়ে সংশ্লিষ্ট মন্ত্রনালয়ে পাঠানো হবে।
এ ব্যাপারে সড়ক ও জনপথ বিভাগ মির্জাপুর অফিসের উপবিভাগীয় সহকারী প্রকৌশলী মো. এনামুল কবির বলেন, সড়ক ও জনপথ বিভাগের অধিনের যে সব আঞ্চলিক রাস্তার ক্ষতি হয়েছে এগুলোর প্রকল্প তৈরী করে মন্ত্রণালয়ে পাঠানো হচ্ছে। বরাদ্দ  পেলে রাস্তাগুলোর দ্রুত সংস্কার করা হবে।

অতিবৃষ্টিতে ক্ষতিগ্রস্ত দেওহাটা-বহুরিয়া-ধামরাই আঞ্চলিক সড়ক