বাড়ি ক্রিকেট ফিটনেসের সঙ্গে কোনো আপস নয় মুশফিকের

ফিটনেসের সঙ্গে কোনো আপস নয় মুশফিকের

স্পোর্টস ডেস্ক

বাংলাদেশ অনূর্ধ্ব-১৯ বিশ্বকাপজয়ী দলের সদস্য তানজিম হাসান সাকিব। এই তরুণ ক্রিকেটার মূলত পেস বোলিং অলরাউন্ডার। তবে ক্রিকেটে সাকিবের আদর্শ মুশফিক। একজন উইকেটরক্ষক কিভাবে একজন পেসারের আদর্শ হন? প্রশ্নটা মাথায় আসা স্বাভাবিক। রহস্য ভেদ করেছেন সাকিব নিজেই। জানিয়েছেন, বাংলাদেশ ক্রিকেটে ফিটনেস নিয়ে মুশফিক যে সংস্কৃতি তৈরি করেছেন, সেটি প্রশংসনীয়।

মুশফিককে নিয়ে কিছুদিন আগে ইত্তেহাদকে এভাবেই বলেন সাকিব, ‘মুশফিক ভাই বাংলাদেশের উঠতি ক্রিকেটারদের জন্য আদর্শ। ‌উনিই আমাদের ফিটনেসের সংস্কৃতি তৈরি করেছেন, যেটি বিদেশিদের মধ্যে অনেকেই আছে। বাংলাদেশ এই সংস্কৃতিটা উনি তৈরি করছেন। এজন্যই ওনাকে আমার এত বেশি পছন্দ।’

ফিটনেস নিয়ে মুশফিকের সচেতনতা নতুন নয়। জাতীয় দলে সুযোগ পাওয়ার আগেই এ বিষয়ে সচেতন তিনি। বাংলাদেশ ক্রীড়া শিক্ষা প্রতিষ্ঠান (বিকেএসপি) এর ছাত্র মুশফিক। সেখানে তাকে খুব কাছ থেকে দেখেছেন একই ব্যাচের ছাত্র বাংলাদেশ হকি দলের সাবেক অধিনায়ক মামুনুর রহমান চয়ন। বন্ধু মুশফিককে নিয়েও একই মত তার।

মুশফিক সম্পর্কে চয়ন জানিয়েছিলেন, ‘ছোটবেলা থেকেই সে পরিশ্রমী। এবং সে জানে যে পরিশ্রমের বিকল্প কোন কিছু নাই। বড় হতে গেলে পরিশ্রম করতে হবে। মেধাই সবকিছু নয়। মেধাটাকে জায়গামত দেখতে গেলে কঠোর পরিশ্রম করতে হবে। মুশফিক সেটিই করে।’

মুশফিকের ফিটনেস ইস্যুতে তার জাতীয় দলের সতীর্থ তামিম ইকবাল তো আরও বেশি মুগ্ধ। ছেলে আরহাম ইকবাল যদি ক্রিকেটার হতে চান তবে মুশফিককে অনুসরণ করতে বলবেন তিনি। এক সাক্ষাৎকারে তামিম বলেছিলেন, ‘বাংলাদেশের কেউ যদি সত্যিকারের আইডল হতে পারে, সে একমাত্র মুশফিকই। আমার ছেলে যদি ক্রিকেটার হতে চায়, আমি বলব আমাকে নয়, মুশফিককে অনুসরণ করতে।’

মাঠের বাইরে মুশফিক ঠিক কতটা পরিশ্রমী বিপিএলে খুলনা টাইগার্সের কোচ জেমস ফস্টার সেটি জানিয়ে গেছেন। শুধু বাংলাদেশ নয়, মুশফিককে বিশ্বের সবচেয়ে পরিশ্রমী ক্রিকেটার হিসেবে মূল্যায়ন করেছেন তিনি।

করোনার শুরুতে যখন বন্ধ হয়ে যায় দেশের ক্রিকেটে। সে সময় অন্যান্য ক্রিকেটাররা ঘরবন্দি সময় কাটালেও সবার আগে ফিটনেস নিয়ে কাজ শুরু করেন মুশফিক। মূলত তার চাওয়াতেই করোনার ঝুঁকি মাথায় নিয়েও গত জুনে মাঠে খেলোয়াড়দের অনুশীলনের সুযোগ করে দেয় বাংলাদেশ ক্রিকেট বোর্ড।

সেই মুশফিক এবার নিউজিল্যান্ড সফরে গেছেন। সেখানে ১৪ দিনের কোয়ারেন্টাইন টাইগাদের। পরের ৭ দিন অনুশীলনের সুযোগ মিললেও শুরুর ৭ দিন হোটেলবন্দি কোয়ারেন্টাইন। হোটেলে নিজ কক্ষে আটকা থাকলেও শরীরচর্চার সঙ্গে আপোষ করতে নারাজ এই উইকেটরক্ষক ব্যাটসম্যান। হাতের কাছে যা কিছু পেয়েছেন, তা দিয়েই নিজেকে ফিট রাখছেন তিনি। তেমনই একটি ভিডিও ফেসবুকে নিজের অফিশিয়াল পেজে শেয়ার করেছেন মুশফিক। সেই ভিডিওতে দেখা যায় দেয়ালে টাঙানো একটি ফিটনেস তালিকা।

সেই ভিডিও শেয়ার করে মুশফিক লিখেছেন, আসসালামুআলাইকুম সবাইকে। আলহামদুলিল্লাহ, রুম কোয়ারেন্টাইনের মধ্যেও শরীরচর্চার সঙ্গে কোনো আপস নয়।