ট্যাংকার দুর্ঘটনার ১২ ঘন্টা পর চুয়াডাঙ্গায় ট্রেন চলাচল শুরু

চুয়াডাঙ্গা জেলার জীবননগর উপজেলায় লাইনচ্যুত তেলবাহী ট্রেনের পাঁচটি ট্যাংকার

জীবননগর (চুয়াডাঙ্গা) প্রতিনিধি

খুলনা থেকে নাটোরগামী একটি তেলবাহী ট্রেনের পাঁচটি ট্যাংকার লাইনচ্যুত হওয়ার ১২ ঘন্টা পর উদ্ধারকারী একটি রিলিফ ট্রেন উদ্ধার কাজ শেষ করেছে। রবিবার গভীর রাতে জীবননগর উপজেলার উথলী রেল স্টেশনে এ দুর্ঘটনা ঘটে। এর ফলে  খুলনার সাথে সারা দেশের ট্রেন যোগাযোগ বিচ্ছিন্ন হয়ে পড়ে। ১২ ঘন্টা পর সোমবার দুপুরে উদ্ধার কাজ শেষ হলে ট্রেন চলাচল স্বাভাবিক হয়। এ ঘটনায় ৫ সদস্যর একটি তদন্ত কমিটি গঠন করা হয়েছে।

উথলী রেলওয়ে স্টেশনের স্টেশন মাস্টার মোহাম্মদ আলী জানান, খুলনা থেকে ৩০টি ট্যাংকারে ডিজেল নিয়ে তেলবাহী ট্রেনটি নাটোরের উদ্দেশ্যে যাত্রা করে। রাত ১২টার দিকে এটি উথলী রেলওয়ে স্টেশনে পৌঁছে। ক্রসিং থাকায় তেলবাহী ট্রেনটি ২ নম্বর লাইনে নেওয়া হয়। রাত ১২টা ৪০ মিনিটের সময় ক্রসিং শেষে ট্রেনটি ২ নম্বর লাইন থেকে ১ নম্বর লাইনে প্রবেশের সময় এর পাঁচটি ট্যাংকার লাইনচ্যুত হয়। এর ফলে এ পথে ট্রেন যোগাযোগ বন্ধ হয়ে যায়। দুর্ঘটনার খবর পেয়ে ঈশ্বরদী থেকে উদ্ধারকারী রিলিফ ট্রেন ঘটনাস্থলে পৌঁছে উদ্ধার কাজ শুরু করে।

এদিকে ট্রেনের বগি লাইনচ্যুতের ঘটনায় রেল বিভাগ ৫ সদস্য বিশিষ্ট একটি তদন্ত কমিটি করেছে। পাকশী বিভাগীয় পরিবহন কর্মকর্তা আনোয়ার হোসেনকে প্রধান করে তদন্ত কমিটি গঠন করা হয়। তদন্ত দলের অন্য সদস্যরা হলেন-পাকশী বিভাগীয় সংকেত প্রকৌশলী রাজিব বিল্লাহ, বিভাগীয় যান্ত্রিক প্রকৌশলী (লোকো) আশিষ কুমার মন্ডল, বিভাগীয় যান্ত্রিক প্রকৌশলী (ক্যারেজ) মমতাজুল ইসলাম এবং পাকশী বিভাগীয় প্রকৌশলী (১) বিরবল মন্ডল।

তদন্ত দলের প্রধান আনোয়ার হোসেন জানান, উদ্ধার কাজ শেষে বেলা ১২ টার সময় ট্রেন চলাচল স্বাভাবিক হয়েছে। কী কারণে লাইনচ্যুতির ঘটনা ঘটেছে তার তদন্ত শুরু করা হয়েছে।