জোয়ারের পানিতে তলিয়ে গেছে ফেরিঘাটের গ্যাংওয়ে

শরীয়তপুর-চাঁদপুর নৌপথের আলুর বাজার ফেরিঘাটের গ্যাংওয়ে তলিয়ে যায় জোয়ারের পানিতে

শরীয়তপুর-চাঁদপুর নৌপথ

বাংলাদেশ অভ্যন্তরীন নৌপরিবহন সংস্থার (বিআইডব্লিটিসি) আলুর বাজার ফেরিঘাটের ব্যবস্থাপক আব্দুল মোমেন বলেন, জোয়ারের পানিতে পন্টুনের গ্যাংওয়ে তলিয়ে মাঝে-মাঝে একটি পন্টুন দিয়ে গাড়ি ওঠা-নামা বন্ধ রাখতে হচ্ছে। গ্যাংওয়ে উঁচু করার কাজ চলছে

 

শরীয়তপুর প্রতিনিধি

শরীয়তপুর-চাঁদপুর নৌপথের আলুর বাজার ফেরিঘাটের গ্যাংওয়ে তলিয়ে যায় জোয়ারের পানিতে। এ কারণে প্রতিদিন দুদফা জোয়ারের সময় কার্যত ঘাটের একটি পন্টুন দিয়ে ফেরিতে গাড়ি ওঠানামা বন্ধ রাখতে হয়। ভোগান্তিতে পড়েন চালক ও যাত্রীরা। শুক্রবার সকালেও পানিতে গ্যাংওয়ে তলিয়ে যাওয়ায় সেখানে একটি বাস আটকে যায়। তখন সেই গ্যাংওয়ে দিয়ে ফেরিতে গাড়ি ওঠানামা বন্ধ হয়ে যায়।

বাংলাদেশ অভ্যন্তরীণ নৌপরিবহন সংস্থা (বিআইডব্লিটিসি) সূত্র জানায়, দেশের দক্ষিণ-পশ্চিমাঞ্চলের ২১ জেলা, স্থলবন্দর বেনাপেল, ভোমরা, নৌবন্দর মোংলা ও পায়রা থেকে পণ্যবাহী যান শরীয়তপুর-চাঁদপুর সড়ক দিয়ে চট্রগ্রাম বিভাগের বিভিন্ন জেলায় যাতায়াত করে। এছাড়া যাত্রীবাহী যান চলাচল তো আছেই। দক্ষিণ-পশ্চিমাঞ্চলের ব্যবসায়ীরা চট্রগ্রাম ও সিলেট বিভাগের বিভিন্ন জেলায় পণ্য পরিবহনের জন্য চাঁদপুর-শরীয়তপুর নৌপথ ব্যবহার করেন। ওই যানবাহনগুলো শরীয়তপুরের আলুর বাজার ও চাঁদপুরের হরিনা ফেরিঘাট দিয়ে মেঘনা নদী পারাপার হয়।

ওই ফেরিঘাটে যানবাহন পারাপারের জন্য ৬টি ফেরি রয়েছে। যার মধ্যে একটি ফেরি বিকল হয়ে চাঁদপুরে বিআইডব্লিটিসির ওয়ার্কসপে রয়েছে।  দুদফা জোয়ারের সময় সকালে ৬টা হতে ১০টা ও সন্ধ্যা ৭টা হতে রাতে ৯টা পর্যন্ত গ্যাংওয়ে পানিতে তলিয়ে যায়। আলুর বাজার ফেরিঘাটের ইজারাদার ও চরসেনসাস ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান জিতু মিয়া ব্যাপারী বলেন, প্রতি বছর বর্ষায় নদীতে পানি বৃদ্ধি পায়। তখন জোয়ারের সময় ঘাটের একটি গ্যাংওয়ে পানিতে তলিয়ে যায়। ওই ঘাটের পন্টুন ও গ্যাংওয়ে উচু করার অনেক অনুরোধ করেছি। কিন্তু সংশ্লিষ্ট বিভাগ কোন গুরুত্ব দিচ্ছে না। খুলনা থেকে চট্রগ্রাম যাতায়াত করে রোহান পরিবহন। শুক্রবার চট্রগ্রাম যাওয়ার পথে আলুর বাজার ফেরিঘাটে ফেরিতে উঠতে গিয়ে পন্টুনের গ্যাংওয়েতে আটকে যায় বাসটি। বেলা ১২টা পর্যন্ত বাসটি গ্যাংওয়ে থেকে নামানো যায়নি। যার কারণে ওই গ্যাংওয়ে দিয়ে কোন যানবাহন ফেরিতে ওঠা-নামা করতে পারেনি। রোহান পরিবহনের ব্যবস্থাপক দিদার হোসেন বলেন, পানিতে গ্যাংওয়ে তলিয়ে ছিল। আমাদের ধারনা ছিল গাড়িটি ফেরিতে ওঠানো যাবে। কিন্তু পানিতে গ্যাংওয়ে উচু হয়ে যাওয়ায় গাড়ি আটকে গেছে। আবার ভাটার সময় গ্যাংওয়ে নেমে গেলে গাড়িটি সরিয়ে নিতে পারব।

বাংলাদেশ অভ্যন্তরীন নৌপরিবহন সংস্থার (বিআইডব্লিটিসি) আলুর বাজার ফেরিঘাটের ব্যবস্থাপক আব্দুল মোমেন বলেন, বাংলাবাজার-শিমুলিয়া নৌপথে ফেরিতে পণ্যবাহী গাড়ি পারাপারে কিছু বিধিনিষেধ থাকায় আলুর বাজার ঘাটে গাড়ির চাপ বেড়েছে। তার মধ্যে একটি ফেরি বিকল। আর জোয়ারের পানিতে পন্টুনের গ্যাংওয়ে তলিয়ে মাঝে-মাঝে একটি পন্টুন দিয়ে গাড়ি ওঠা-নামা বন্ধ রাখতে হচ্ছে। গ্যাংওয়ে উঁচু করার কাজ চলছে।