চন্দনাইশে পানির অভাবে মরে যাচ্ছে মরিচ ক্ষেত

চন্দনাইশে পানির অভাবে মরতে বসেছে মরিচ ক্ষেত

চন্দনাইশ(চট্টগ্রাম) প্রতিনিধি
চট্টগ্রামের চন্দনাইশে পানির অভাবে মরতে বসেছে মরিচ ক্ষেত সহ বিভিন্ন রবিশস্য। ফলে কৃষকরা চরম দুর্ভোগে পড়েছে। মৌসুমী রবিশস্য ক্ষেতে পানির অভাবে খরচ পুষিয়ে তোলা নিয়ে দিশাহারা কৃষকরা। প্রতিবছর দক্ষিণ গাছবাড়িয়া ৮নং ওর্য়াডস্থ মধ্য দিয়ে প্রবাহিত হওয়া বরুমতি খালের দুই তীরের নয়া পাড়া,সর্বল কাজী পাড়া,হরিণার পাড়া,ছাদেক মো:পাড়া,বাদশা পাড়া,তালুকদার পাড়ার কৃষকরা খালের পানি সেচের মাধ্যমে রবিশস্যের চাষাবাদ করেন। তৎমধ্যে বিশেষত: মরিচ ও আলু ক্ষেত হচ্ছে অন্যতম। সরেজমিনে গিয়ে দেখা যায় বরুমতি খালের উপরের অংশ হাশিমপুর ইউনিয়নের খুনিয়ার পাড়া নামক স্থানে খালে (গোদা) বাধ দেওয়ার কারণে খালে পানি শুকিয়ে গিয়েছে। এতে পানির অভাবে কৃষকরা মরিচ ক্ষেতে পানি দিতে পাচ্ছেন না। যার কারণে গ্রীষ্মের তাপদাহে মরিচ ক্ষেতের গাছগুলি শুকিয়ে যা্েচ্ছ। সর্বল কাজী ও নয়া পাড়ার কৃষক মহিউদ্দিন ও ছকির আহমদ জানান, খুনিয়ার গোদা বা বাধ দেওয়ার কারণে এ সব এলাকার কৃষকদের মরিচ ক্ষেত পানির অভাবে অকালে মরতে বসেছে। কৃষকরা আরো জানান,বরুমতি খালের দুই তীরের প্রায় ২০-২৫ একর জমিতে মরিচ ক্ষেত রয়েছে। প্রতিবছরএসব জমিতে কৃষকরা মরিচের চাষাবাদ করে নিজেদের চাহিদা মিটিয়ে বিভিন্ন অঞ্চলে সরবরাহ করে প্রচুর অর্থ উপার্জন করত। কিন্তু এবার পানির অভাবে কেবল মরিচ ক্ষেত নয় অন্যান্য রবিশষ্যও মরতে বসায় কৃষকরা এখন লোকসানের আশঙ্কা করছেন।
এ ব্যাপারে পৌর মেয়র মাহাববুল আলম খোকার সাথে যোগাযোগ করা হলে তিনি সত্যতা স্বীকার করে বলেন,হাশিমপুর খুনিয়ার পাড়ায় বরুমতি খালে বাধটি পৌরবাসীর জন্য ফারাক্কার বাঁেধ পরিণত হয়েছে। বিষয়টি নিয়ে উক্ত ইউনিয়নের চেয়ারম্যান আলমঙ্গীরুল ইসলামের সাথে কথা বলে শিগগির সমাধান করবেন বলে জানান।