এলেংজানী নদীর ভাঙন বিলীন হচ্ছে সড়ক কৃষিজমি ঘরবাড়ি

 টাঙ্গাইলের দেলদুয়ার নদীতে ধসে যাওয়া দেলদুয়ার-লাউহাটী সড়কের একংশ

দেলদুয়ার (টাঙ্গাইল) প্রতিনিধি

বর্ষা শেষ হওয়ার পর থেকেই দেলদুয়ারের এলেংজানী নদীতে দেখা দেয় তীব্র ভাঙন। এই ভাঙনের ফলে সম্প্রতি ফসলি জমি, ঘরবাড়ি নদীগর্ভে বিলীন হয়ে গেছে। এখন শাহধারী পাড়ায় সড়ক ও জনপথ বিভাগের অধীনে দেলদুয়ার-লাউহাটী পাকা সড়কের প্রায় ৫০ ফুট নদীগর্ভে চলে গেছে। বন্ধ হয়ে গেছে ভারী যানবাহন চলাচল। ঝুঁকি নিয়ে মোটরসাইকেল, রিকসা ভ্যান ও ছোট ছোট যানবাহন পাশের কাচা রাস্তা দিয়ে চলাচল করছে। যে কোন মুহূর্তে বড় ধরনের দুর্ঘটনা ঘটতে পারে।

এদিকে এলাকাবাসীর অভিযোগ, প্রায় ২-৩ মাস আগে রাস্তার পূর্ব পাশে একটি জমিতে ভাঙন দেখা দেয়। বর্তমানে জমিটি সম্পূর্ন ভেঙে নদীতে চলে গেছে। সেই জমির পর এই রাস্তাও ভাঙতে শুরু করে। প্রায় ১৫-২০ দিন আগে রাস্তাটির একটি অংশ হঠাৎ ধসে পড়ে। এখনো ভাঙন অব্যাহত রয়েছে। এলাকাবাসীর দাবি, শুরুতেই যখন সড়কটিতে ভাঙন দেখা দেয় তখন যদি কর্তৃপক্ষ ভাঙন ঠেকাতে প্রয়োজনীয় পদক্ষেপ নিতো তাহলে এভাবে পুরো রাস্তা ভেঙে যেত না। এখনই প্রয়োজনীয় পদক্ষেপ না নিলে দেলদুয়ারের সাথে লাউহাটী এবং ফাজিলহাটী ইউনিয়নের সড়ক পথে যোগাযোগ সম্পূর্ন বিছিন্ন হয়ে যাবে। দুর্ভোগের শিকার হবে হাজার হাজার জনগণ। তাই তারা দ্রæত প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেয়ার দাবি জানান।

এ ব্যাপারে সড়ক ও জনপথ (সওজ) বিভাগের টাঙ্গাইলের নির্বাহী প্রকৌশলী আলিউর হোসেন বলেন, রাস্তাটি সড়ক ও জনপথ বিভাগের। কিন্তু নদীর অনেক গভীর থেকে ধসে যাওয়ায় রাস্তাটি মেরামতের দায়িত্ব পানি উন্নয়ন (পাউবো) বোর্ডের। আমি বিষয়টি সর্বোচ্চ গুরুত্ব দিয়ে পানি উন্নয়ন বোর্ডের নির্বাহী প্রকৌশলীর কাছে লিখিতভাবে চিঠি দিয়েছি। তারা এখন প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণ করবেন।

 

পানি উন্নয়ন বোর্ড (পাউবো) টাঙ্গাইলের নির্বাহী প্রকৌশলী সিরাজুল ইসলাম বলেন, ক্ষতিগ্রস্ত অংশ দ্রæত মেরামত করার জন্য স্থানীয় সংসদ সদস্যও ডিও লেটার দিয়েছেন। আমরা অর্থের জন্য উর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষের কাছে লিখিত আবেদন করেছি। অর্থ বরাদ্দ পেলে অগ্রাধিকার ভিত্তিতে রাস্তাটি মেরামত করা হবে।